সবাইকে ঢাকাচটি গল্পের আসরে স্বাগতম

mbp@emailbangla.com এই ইমেইলে বাংলায় লিখে পাঠাতে পারেন।

মামীর বোনের মেয়ে রিনা ও রিনার মা

রিনা, দুর সম্পর্কের খালাতো বোন। মামীর বোনের মেয়ে। এগারো বছর বয়স থেকে ইচড়ে পাকা। দুধ ওঠার আগে থেকেই আমার সাথে টাংকি মারতো। আমিও উপভোগ করতাম। একসময় হঠাৎ মোটা হওয়া শুরু করলো। বছরের মধ্যে গজিয়ে উঠলো কচি কচি কিন্তু কমলা সাইজের স্তন। আমি ওকে প্রেমিকা মনে করতাম মনে মনে, সেও আমাকে তাই মনে করতো। অনেকবার আমাকে গায়ে হাত দেয়ার সুযোগ দিয়েছে। কিন্তু ভোদাই আমি কিছুই করিনি। ওর বয়স তের-চৌদ্দ যখন কমলা সাইজের বুক গজিয়ে গেছে তখন । কিন্তু ওড়না পড়তো না। বহুদিন ওদের বাসায় গিয়ে ওর স্তনদুটো প্রান ভরে দেখেছি কামিজের ওপর দিয়ে। কল্পনায় মর্দন চোষন করেছি। সাহস করে ধরিনি। পরে জেনেছি অন্যরা ওর দুধগুলো ধরে, টিপে, খেয়ে মধু নিয়েছিল। কেউ কেউ এমনকি চুদেছেও। রাম চোদা যাকে বলে। ও এরকম একটা মাল জানলে আমিই ওর প্রথম চুদতে পারতাম ওকে।

মজার ব্যাপার কী, ওর দুধগুলো এত বড় হয়ে গেছিল যে ওর মার চেয়েও বড় লাগতো ওকে। ওর মার দুধ এমনিতে ছোট ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে। তবে কিছুদিন পর দেখি আমার সেই খালা, ওর মা কীভাবে যেন ফিগার বদলে ফেললো আর স্লীভলেস ব্লাউজ পরা শুরু করলো। তখন ওকে বাদ দিয়ে ওর মার দিকে নজর গেল আমার। প্রায় রাতে রিনার আম্মা আমার যৌন কল্পনায় আসতে লাগলো। আমি কল্পনা করতাম এভাবে। আমি ওদের বাসায় গেছি। ওর মা বেডরুমে শুয়ে। আর কেউ নেই বাসায়। আমাকে বিছানা বসতে দিল। বললো মাথা ধরেছে। আমি বললাম মাথা টিপে দেবো। উনি বললেন দিতে। মাথা টিপে দিতে দিতে খেয়াল করলাম বুক থেকে শাড়ি সরে গেছে। পুরুষ্ট স্তন ব্লাউজের ভেতর থেকে চেয়ে আছে। উনি বললেন, আজ খুব গরম। গায়ের কাপড় ফেলে দিতে ইচ্ছে করছে। আমি নিরীহ ভাবে বললাম, ঠিক তাই। খুলে ফেলেন। উনি বললেন, লজ্জা লাগে। আমি বললাম, লজ্জা কী এখানে তো আর কেউ নেই। আমি তো আপনার ছেলের মতো। উনি বললেন, তুমি ব্লাউসটা খুলে দাও তাহলে। তারপর আমি পটপট করে ব্লাউজের বোতামগুলো খুলতে খুলতে বলি, আরে আপনি তো ঘেমে ভিজে গেছেন। তোয়ালে দিয়ে মুছে দেই? উনি বললেন, দাও। তারপর আমি ব্লাউজটা পুরো খুলে চোখের সামনে ওনার নগ্ন পুরুষ্ট স্তন দুটো দেখেও প্রবল চেষ্টায় স্বভাবিক থেকে তোয়ালে দিয়ে দুই স্তনের মাঝখানে মুছে দিতে দিতে বললাম, আপনার ফিগার খুব সুন্দর এই বয়সেও। উনি বললেন, সত্যি? আমি বলি, সত্যি আমি এত সুন্দর স্তন দেখিনি কখনো। আচ্ছা এই বোঁটাটা একটু চাপা কেন? উনি বললেন, কই। আমি স্তনের বোটায় আঙুল দিয়ে বলি, এই যে। এটা বসা টাইপ আর ওটা খাড়া। উনি বললেন, কে জানে কেন, তবে তুমি চুষে দিলে দুটো এক হয়ে যাবে। আমি অবাক হবার ভান করে বলি, তাই নাকি। চূষবো তাহলে? উনি বললেন, চুষো। অনেকবছর কেউ চোষে না। আমি আর দেরী না করে ঝাপিয়ে পড়ে চুষতে শুরু করলাম ওনার দুটো স্তন, মর্দনে মর্দনে উনাকে উত্তেজিত করে দিলাম। তারপর গায়ের উপর উঠে শাড়ী তুলে ভোদায় ঠাপ মারা শুরু করলাম। উনি বললেন, তুমি প্যান্ট খুলো, অসুবিধা নাই আমার। তোমার যা খুশী করো আমাকে নিয়ে। আমি দেরী না করে ন্যাংটো করে ফেললাম ওনাকে, তারপর নিজেও নেংটো হয়ে শুরু করলাম রাম চোদা। কনডম ছাড়া চুদে চুদে সবগুলো মাল ভেতরে ফেললাম। বললাম, আপনার পেটে বাচ্চা দেবো আমি। উনি হেসে বললেন, ভয় নেই যতই চোদো, বাচ্চা হবে না। লাইগেশান করানো আছে।

মে 13, 2009 Posted by | খালা, খালাতো বোন | মন্তব্য দিন

   

Follow

Get every new post delivered to your Inbox.